হাতিয়াড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়

নামকরন : বিদ্যালয়ের নাম হাতিয়াড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় । এটি এগারোখানের হাতিয়াড়া গ্রামে অবস্থিত অর গ্রামের নাম অনুসারেই বিদ্যালয়ের নাম রাখা হয় হাতিয়াড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়

ইতিহাস ও ঐতিহ্য : হাতিয়াড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি বেশ পুরাতন । ১৯৬০ এর কাছাকাছি সময়ে বাবু নারায়ণ চন্দ্র দাসে দান কারা জমির উপর স্কুলের প্রথম কর্মকান্ড শুরু হলেও তা ১৯৬৮ এর দিক নিয়মতান্ত্রিকভাবে প্রতিষ্ঠিত হয় । হাতিয়াড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ১৯৭৩ সালে জাতিয়করণের তালিকায় আসে।

অবস্থান : হাতিয়াড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় নড়াইল সদর উপজেলার ৭নং সেখহাটি ইউনিয়নের হাতিয়াড়া গ্রামে অবস্থিত। স্কুলটির আবস্থন উপজেলা শহর থেকে প্রায় ১৫ কি:মি দুরে অবস্থিত। স্কুলের পাশেই রয়েছে বিশাল বটগাছ ও তার পাশেই কালি মন্দির। বিদ্যালয়ের সামনে দিয়ে যাওয়া পাকা রাস্তা সদর উপজেলার সাথে গ্রামের মানুষের চলাচলের পথ সুগম করেছে।

বিদ্যালয় এলাকা : হাতিয়াড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এলাকা বেশি বড়ো নয় হাতিয়াড়া গ্রামের ও তার পাশের দুই গ্রাম বাকলী ও মালিয়াট থেকে কিছু পরিমাণ শিক্ষার্থী বিদ্যালয়ে লেখাপড়ার জন্য আসে।

শিক্ষক/শিক্ষিকা ও তাদের চিন্তা চেতনা :বর্তমানে হাতিয়াড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৫ জন শিক্ষিকা কর্মরত রয়েছেন। বাবু নারায়ণ চন্দ্র দাস মহাশয়ের দান কৃত জমিতে গড়া এ বিদ্যালয়ে প্ররম্ভিক  সময়ে শিক্ষকতার কাজে নিযুক্ত ছিলেন প্রয়াত বাবু সুষেন কুমার পাঠক, প্রয়াত বাবু প্রভাত কুমার শিকদার এবং বাবু অঘোরানন্দ শিকদার মহাশয়। পরবর্তী সময়ে নন স্কুলএরিয়া ভবন নির্মিত হলে তখন প্রধান শিক্ষকের দায়িত্বে ছিলেন বাবু পুন্যচরণ মন্ডল মহাশয় এবং সহ: শিক্ষকের দায়িত্বে ছিলেন যথাক্রমে

  • বাবু কানাইলাল শিকদার
  • বাবু নিরঞ্জন বিশ্বাস
  • বাবু রমেশ পাঠক ও
  • বাবু নিশিকান্ত বৈরাগী

তারা গ্রামকে কুসংষ্কার ও অশিক্ষকার অন্ধকার থেকে এলাকাকে মুক্তির রক্ষে কাজ করে গেছেন এ বিদ্যালয়ে আর তারই ধারাবাহিকতা বজায় রেখে চলেছে এ স্কুল ও তার শিক্ষক শিক্ষিকারা। বর্তমানে স্কুলের প্রধান শিক্ষিকার দায়িত্বে আছেন মিসেস স্বম্পা রানী পাঠক।

অবকাঠামো : বিদ্যালয়ে ৫টি কক্ষ রয়েছে একটি শিক্ষক-শিক্ষিকাদের একটি প্রাক-প্রাথমিক শিশুদের কক্ষ। প্রাক-প্রাথমিক কক্ষে ছড়া ও মজার বইসহ রয়েছে নানা ধরনের খেলার উপকরন। বিদ্যালয়ে মাল্টিমিডিয়ায় ক্লাস করানোর ব্যবস্থা রয়েছে। বিদ্যালয়ের সামনে খেলার মাঠ নলকুপ ও পরিচ্ছন্ন টয়লেট ও রয়েছে। হাতিয়াড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রয়েছে একটি ফুরের বাগান যেখানে কোমলমতি নিষ্পাপ শিশুদের মতোই প্রতিদিন নানা রকমের ফুল ফোটে। বিদ্যালয়ে নতুন ভবন বাউন্ডারী দেয়াল ও বিদ্যালয়ের নাম খোদাইকরা প্রধান ফটক কিদ্যালয়ের সৌন্দর‌্য আরো অনেকখানি বাড়িয়ে দিয়েছে।

ফলাফল খেলাধুলা : হাতিয়াড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ফলাফল বেশ ভালো বর্তমানে স্কুলে প্রায় ১০০ এর উপরে শিক্ষর্থী বিদ্যমান। বিদ্যালয়ে প্রাক প্রাথমিক ও সমাপনী পরীক্ষার ফলাফল খুবই ভালো। প্রতি বছর সমাপনী পরীক্ষায় বিদ্যালয় থেকে উঠে আসছে জিপিএ ৫ পাওয়া ছাত্র-ছাত্রী। এছাড়া প্রতিবছর বঙ্গমাতা ও বঙ্গবন্ধু ফুটবল খেলায় অংশগ্রহণ করে , স্কুলে পালি হয় বার্ষীক ক্রীড়া প্রতিযোগীতা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

Leave a Reply