শেষ হলো তিনদিন ব্যাপি যোগব্যায়াম প্রশিক্ষণ

By অক্টোবর ২৫, ২০১৮ ফেব্রুয়ারি ৩, ২০২০ স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা

ইয়োগা বা যোগব্যায়াম একটি শাস্ত্রীয় কৌশল, যা পাঁচ হাজার বছরের পুরনো। প্রাচীন ভারতীয় উপমহাদেশের মুনি ঋষিরা তাদের স্বাস্থ্য ঠিক রাখা এবং দীর্ঘজীবনের জন্য বিভিন্ন কলা-কৌশল আবিষ্কার বা আয়ত্ত করেন। প্রায় ৪০০ বছর আগে সর্বপ্রথম ঋষি পতঞ্জলি কিছু আসনের কথা বলেন এবং এগুলো মানুষের মাঝে ছড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেন। পরে ধীরে ধীরে এই কলাকৌশল ছড়িয়ে পড়ে পৃথিবীর সর্বত্র। উনবিংশ ও বিংশ শতাব্দীর দিকে বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন ভাষায় ‘পতঞ্জলিআসনা’ নামে গ্রন্থটি ছড়িয়ে পড়ে। পরবর্তীতে আরো অনেকেই যোগব্যায়াম এর ওপর বেশকিছু গ্রন্থ রচনা করেন।

ওজন কমানো, শক্তিশালী নমনীয় শরীর, উজ্জ্বল ত্বক, শান্ত মন, ভালো স্বাস্থ্য ইত্যাদি যা কিছু আমরা পেতে চাই সব কিছুর চাবি আছে যোগাসনে । এতে অনেক রকম শারীরিক সমস্যা যথা-উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, করোনারি আর্টারি ব্লকের ইত্যাদি রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব এবং শারীরিক, মানসিক ও আধ্যাত্মিকভাবে সুস্থ জীবন কাটানো সম্ভব । যোগ হল এক জীবনদর্শন, যোগ হল আত্মানুশাসন, যোগ হল এক জীবন পদ্ধতি । যোগ শুধু বিকল্প চিকিৎসা পদ্ধতিই নয়, বরং যোগের প্রয়োগ ব্যাধিকে নির্মূল করে । এটি এক বিধাতা প্রদত্ত শুধু শরীরেরই নয়, পুরো মানসিক রোগেরও চিকিৎসা শাস্ত্র ।

যোগ অ্যালোপ্যাথির মতো কোনো লাক্ষণিক চিকিৎসা নয়, বরং রোগের মূল কারণকে নির্মূল করে আমাদের ভেতর থেকে সুস্থ করে তোলার এক উপায় । ইয়োগা বা যোগব্যায়াম সাধারণত তিনটি প্রধান কাঠামোর ওপর নির্মিত হয় । যেমন ব্যায়াম, শ্বাস এবং ধ্যান। ব্যায়াম ও বিভিন্ন আসনের মাধ্যমে শরীরকে নিজের আয়ত্তে আনার কৌশল জানা যায় এবং বিভিন্ন রোগ থেকে নিজেকে মুক্ত রাখা যায় । এছাড়া যোগব্যায়াম স্বাস্থ্য, সৌন্দর্য এবং শিথিলকরণ একটি পথ ।

**প্রিয় এগারোখান** গ্রুপের আয়োজনে এগারোখানের গোচর মাঠ প্রাঙ্গনে তিনদিন ব্যাপি যোগব্যায়াম প্রশিক্ষণ বিষয়ক কর্মশালার আয়োজন করা হয় । এর মূল লক্ষ ছিলো সকলকে যোগব্যায়াম ও এর উপকারীতা সম্পর্কে সঠিক ধারনা দেওয়া ।  সকলের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহনে শেষ হয় এ কর্মসূচি । যোগব্যায়ামে অংশনেন এলাকার সর্বস্তরেরে মানুষ , বৃদ্ধ-বৃদ্ধা, ছেলে-মেয়ে, মধ্যবয়সী সহ সবাই । এগারোখানের মানুষকে সুস্থ ও নিরোগ রাখতে **প্রিয় এগারোখান** এর এ প্রয়াস করে ।  বিশেষ ধন্যবাদ জানাই  আশীষ অধিকারী (যোগ ইন্সট্রাক্টর, ব্রাক ইউনিভার্সিটি ) কে তার মূল্যবান সময়ের কিছুটা আমাদের দেয়ার জন্য । তার স্বদিচ্ছায় এ উদ্যোগ । একদিকে আশীষ অধিকারী যখন বড়োদের যোগাসন শেখাতে ব্যাস্ত তখন তারই ছেলে জতির্ময় অধিকারী ব্যাস্ত বাচ্চাদের যোগব্যায়াম শেখাতে ।
বিশেষভারে ধন্যবাদ জানাই বিপ্লব বিশ্বাস কে  “প্রিয় এগারোখান” গ্রুপের হয়ে কাজটি পরিচালনা করার জন্য । এছাড়াও সার্বিক কাজে সহযোগীতা করেছে বাপ্পা( Bappa Maitra), বিশ্বজিত ( Biswajit Biswas) এবং সুদীপ্ত ( Sudipta Biswas Dipto) ।

Leave a Reply